WordPress SEO এর পূর্ণাঙ্গ গাইড লাইন

 


 WordPress SEO পোস্ট দেয়ার পূর্ণাঙ্গ গাইড লাইন 


ওয়েবসাইটে আরও ট্র্যাফিক পাওয়ার জন্য আপনার ওয়ার্ডপ্রেস এসইও উন্নত করা গুরুত্বপূর্ণ। দূর্ভাগ্যক্রমে বেশিরভাগ ওয়ার্ডপ্রেস এসইও নতুন ব্যবহারকারীদের জন্য অনেক বেশি টেকনিক্যাল এবং কিছুটা জটিল বলে মনে হয়। আপনি যদি নিজের ওয়েবসাইটের ট্র্যাফিক বাড়ানোর বিষয়ে গুরুত্ব দিতে চান, তবে আপনাকে সেরা ওয়ার্ডপ্রেস এসইও প্রাকটিসের দিকে মনোযোগ দিতে হবে।

এই টিউটোরিয়ালে আমরা আপনার ওয়ার্ডপ্রেস এসইও উন্নত করতে এবং আরও অর্গানিক ট্র্যাফিক পেতে সহায়তা করার জন্য টপ ওয়ার্ডপ্রেস এসইও টিপসগুলো শেয়ার করবো।

আপনি নিশ্চয়ই এক্সপার্টদের কাছে শুনে থাকবেন যে ওয়ার্ডপ্রেস এসইও ফ্রেন্ডলি। এজন্যই বেশিরভাগ লোক একটি ব্লগ বা ওয়েবসাইট শুরু করার জন্য ওয়ার্ডপ্রেস পছন্দ করেন।

যদিও ওয়ার্ডপ্রেস কোড বাই ডিফল্ট এসইও ফ্রেন্ডলি, কিন্তু ওয়ার্ডপ্রেসে ব্লগিং করার সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে হলে আপনাকেও অনেক কিছু করতে হবে।

ওয়ার্ডপ্রেস এসইও যথাযথভাবে অপটিমাইজ করার জন্য আমাদের বেশ কয়েকটি পদক্ষেপ নিতে হবে।


এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ ?

সার্চ ইঞ্জিনগুলো বেশিরভাগ ওয়েবসাইটের ট্রাফিকের বৃহত্তম উৎস। গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনগুলো অনুসন্ধানকারীদের কাছে যথার্থ তথ্য দেখানোর জন্য উন্নত অ্যালগরিদম ব্যবহার করে। তবে সেই অ্যালগরিদমগুলো নিখুঁত নয়, কনটেন্ট সম্পর্কে বোঝার জন্য তাদের এখনও আপনার সহায়তা প্রয়োজন।

যদি আপনার বিষয়বস্তু অপ্টিমাইজ করা না হয়, তবে অনুসন্ধান ইঞ্জিনগুলি টপিক সম্পর্কে না বুঝতে পারায় কোথায় Rank করাবে এটি নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দে পরে যাবে।

লোকেরা যখন আপনার লেখার বিষয় নিয়ে সার্চ করবে তখন আপনার কনটেন্ট বা ওয়েবসাইট অনুসন্ধান ফলাফলগুলোতে প্রদর্শিত হবে না এবং আপনি সমস্ত ট্রাফিক মিস করবেন।

সার্চ ইঞ্জিন থেকে সর্বাধিক ট্রাফিক পাওয়ার জন্য সমস্ত ব্লগ এবং অনলাইন বিজনেস মালিকদের জন্য তাদের ওয়েবসাইটকে এসইও ফ্রেন্ডলি করা সত্যিই খুব গুরুত্বপূর্ণ।

ব্যসিক ওয়ার্ডপ্রেস এসইও | Basic WordPress SEO

এসইও প্রযুক্তিগত ব্যাপার মনে হতে পারে, এবং আসলেই তাই। তবে ওয়ার্ডপ্রেসে এসইও করার জন্য আপনাকে প্রযুক্তবিদ হওয়ার দরকার নেই।

আপনার সাইট অপ্টিমাইজেশন করার জন্য কয়েকটি প্রাথমিক এসইও টিপস শিখে নিলেই আপনার ওয়েবসাইট ট্র্যাফিকের লক্ষণীয় উন্নতি দেখতে পারবেন।

আপনি যদি ইতিমধ্যে ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহার করা শুরু করে থাকেন তবে যা প্রয়োজন তা আপনার আছে। সুতরাং, চলুন আপনার ওয়েবসাইটটি এসইও করা শুরু করি।


সার্চ ইঞ্জিন Visibility Settings চেক করা

ওয়ার্ডপ্রেসে সার্চ ইঞ্জিনগুলো থেকে ওয়েবসাইটকে সরিয়ে নিতে একটি অন্তর্নির্মিত বিকল্প আছে। এই বিকল্পটির উদ্দেশ্য হলো প্রস্তুত হওয়ার আগে আপনার ওয়েবসাইটে কাজ করার জন্য সময় দেওয়া, এবং জনসাধারণের কাছ থেকে লুকিয়ে রাখা।

কিন্তু, কখনও কখনও এই বিকল্পটি দূর্ঘটনাক্রমে অন হয়ে যেতে পারে এবং এটি সার্চ ইঞ্জিনগুলোতে আপনার ওয়েবসাইটকে অনুপস্থিত করে দেয়।

যদি আপনার ওয়েবসাইট সার্চ রেজাল্টে উপস্থিত না হয়, তবে প্রথমে আপনাকে যা করতে হবে তা হলো এই অপশনটি চালু করা হয়নি তা নিশ্চিত করা।


ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের XML Sitemaps যোগ করা

একটি এক্সএমএল সাইটম্যাপ বিশেষভাবে ফর্ম্যাট করা ফাইল যা আপনার ওয়েবসাইটের প্রতিটি পৃষ্ঠাকে সার্চ ইঞ্জিনে তালিকাভুক্ত করে। এটি সার্চ ইঞ্জিনগুলোর জন্য আপনার ব্লগের সমস্ত পেজ এবং কনটেন্ট সার্চ করা সহজ করে তোলে।

এক্সএমএল সাইটম্যাপ যুক্ত করার সাথে সাথে আপনার সাইটের সার্চ রেজাল্ট Rankingএ কোনও উন্নতি হবে না, তবে এটি সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে দ্রুত আপনার কনটেন্ট ইনডেক্স করাতে সহায়তা করবে।

যেকোনো এসইও প্লাগইন থেকে সহজেই আপনার সাইটের সাইটম্যাপটি কপি করে সার্চ কনসোলে যুক্ত করে দিতে পারবেন।


এসইও অপটিমাইজ আর্টিকেল লেখা

প্রায়শই নতুন ব্লগাররা এই ভেবে ভুল করে যে কোনো একটি ওয়ার্ডপ্রেস এসইও প্লাগইন ইনস্টল করলেই আমার কাজ শেষ, এসইও আপনা-আপনি  হতে থাকবে।

আসলে কিন্তু সেরকম কোনো ব্যপার নয়। এসইও একটি চলমান প্রক্রিয়া যার সর্বোচ্চ সুবিধা পেতে হলে অবশ্যই অন পেজ অপটিমাইজেশন চালিয়ে যেতে হবে।

সকল ভালো SEO প্লাগইন আপনাকে প্রতিটি ব্লগ পোস্ট এবং পেজের টাইটেল, ডেটা ডেস্ক্রিপশন ও ফোকাস কীওয়ার্ড অপটিমাইজেশ করতে দেয়। ভিজিটরস গুগলে সার্চ করে কিরূপ দেখবে তার preview দেখায়।

সর্বাধিক ক্লিক এবং অর্গানিক ট্রাফিক পেতে টাইটেল এবং মেটা ডেস্ক্রিপশন অপটিমাইজ করুন।

আপনি যদি ফোকাস কীওয়ার্ড এবং রিলেটেড কীওয়ার্ড কিভাবে বাছাই করতে হয় তা বুঝতে না পারেন তবে আর্টিকেল লেখার নিয়ম পড়ে নিন। আমি বলবো আপনি এটি অবশ্যই পড়ুন, কারণ এখানে একটি এসইও অপটিমাইজড আর্টিকেল লেখার পূর্ণাঙ্গ গাইড রয়েছে।


বেস্ট ওয়ার্ডপ্রেস এসইও প্রাকটিস

আপনি যদি ওয়ার্ডপ্রেস এসইওর বেসিকগুলি অনুসরণ করেন এবং সেরা ওয়ার্ডপ্রেস এসইও প্লাগইন ব্যবহার করেন তবে আপনি ইতিমধ্যে বেশিরভাগ ওয়েবসাইটের চেয়ে এগিয়ে গেছেন।

তবে আপনি যদি আরও ভাল ফলাফল চান তবে আপনার নীচের wordpress SEO’র সেরা বিষয়গুলোও মেনে চলতে হবে।

এগুলো কোনো প্রযুক্তি সম্পর্কিত এসইও প্রাকটিস নয়। এগুলো নিয়ে কাজ করার জন্য আপনার কোনোরকম কোডিং জানারও প্রয়োজন হবেনা। কিন্তু বড় ধরনের পরিবর্তন আনার সক্ষমতা অবশ্যই রয়েছে।

সঠিকভাবে ক্যাটেগরি ও ট্যাগের ব্যবহার

ওয়ার্ডপ্রেস আপনাকে আপনার ব্লগ পোস্টগুলিকে ক্যাটেগরি এবং ট্যাগ এর মাধ্যমে sort করতে দেয়। ক্যাটেগরি এবং ট্যাগ ওয়েবসাইটের কনটেন্ট টপিক অনুসারে সাজাতে এবং পাঠকদের কনটেন্ট খুঁজে পেতে সুবিধা করে দেয়।

যথার্থ ট্যাগ এবং ক্যাটেগরি সার্চ ইঞ্জিনগুলোকে আপনার ওয়েবসাইট টপিক এবং বিষয়বস্তু বুঝতে সুবিধা করে দেয়।

কিন্তু অধিকাংশ ব্লগাররা confused হয়ে যান এবং সঠিকভাবে ট্যাগ ও ক্যাটেগরি ব্যবহার করতে পারেননা। দেখে নিন কিভাবে ওয়ার্ডপ্রেস এসইওর জন্য categories এবং tags ব্যবহার করবেন।

এভাবে বলা যায় যে, একটি বই যদি ক্যাটেগরি হয় তবে এর সূচিপত্রগুলো হলো ট্যাগ।

উদাহরনস্বরূপ, ধরুন আপনার ব্লগটিতে খাবার, স্বাস্থ্য, অনলাইন ইনকাম বিষয়ক ক্যাটেগরি রয়েছে। তাহলে খাবার ক্যাটেগরির কোনো পোস্টের জন্য ট্যাগ হবে সালাদ, চিকেন, বিরিয়ানি, ইত্যাদি। অর্থাৎ আরো বেশি স্পেসিফিক কীওয়ার্ডস।


ইনবাউন্ড লিঙ্ক তৈরির অভ্যাস গড়ে তোলা

অনুসন্ধান ইঞ্জিনগুলি আপনার ওয়েবসাইটের প্রতিটি পৃষ্ঠার জন্য একটি স্কোর (page authority) নির্ধারণ করে। এই স্কোরটি কিভাবে করা হয় তা গোপন রাখা হয় যাতে কেউ কোনো ট্রিকস করতে না পারে। কিন্তু page authority স্কোর দেওয়ার জন্য লিঙ্ককে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হয় ।

এজন্যই আপনার একটি ব্লগ পোস্টের সাথে অন্য পোস্ট এবং পেজগুলোর লিঙ্কআপ করা গুরুত্বপূর্ণ। আপনার নিজের পোস্টগুলোর মাঝে যখনই সম্ভব লিঙ্ক যুক্ত করার অভ্যাস করুন। আপনার যদি একাধিক লেখক থাকে তবে তাদেরকে বলে দিন যেন প্রতিটি পোস্টে কমপক্ষে ৩টি করে ইনবাউন্ড লিঙ্ক থাকে।

এই চর্চাটি আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের এসইও স্কোর এবং পোস্টের অথরিটি বৃদ্ধি করবে। এছাড়া পাঠককে আপনার সাইটে আরো বেশি সময় ধরে রাখার অসাধারণ উপায়ও বটে।


ওয়ার্ডপ্রেস ইমেজ অপটিমাজেশন

চিত্রগুলো লেখার চেয়ে বেশি আকর্ষক তবে, এগুলো পেজ স্লো লোড হওয়ার কারণও বটে। আপনি যদি চিত্রের আকার এবং গুণমান সম্পর্কে সতর্ক না হন তবে তারা আপনার ওয়েবসাইটকে স্লো করে ফেলতে পারে।

আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে আপনি সাইট দ্রুত লোড করার জন্য অপটিমাইজড করা ছবি ব্যবহার করেছেন। ছবি অপটিমাইজড কিভাবে করতে হয় জানতে গাইডটি দেখে নিন।

সার্চ ইঞ্জিনগুলোর জন্য ইমেজ অপটিমাইজেশন করতে আরেকটি কৌশলটি হলো টাইটেল এবং Alt ট্যাগ ব্যবহার করা। এই ট্যাগগুলি সার্চ ইঞ্জিনকে বুঝতে সাহায্য করে যে আপনার চিত্রটি কি সম্পর্কিত।

কোনও চিত্র আপলোড করার সময় ওয়ার্ডপ্রেসে সহজেই টাইটেল এবং Alt ট্যাগ যুক্ত করা যায়।


Cache Plugin ব্যবহার

ওয়ার্ডপ্রেস একটি গতিশীল কন্টেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম। যখনই কোনও ব্যবহারকারী আপনার ওয়েবসাইটটিতে আসেন, ওয়ার্ডপ্রেস ডাটাবেস থেকে তথ্য নিয়ে আসে এবং তারপরে ওয়েবপেজটি ব্যবহারকারীর ব্রাউজারে উপস্থাপন করে, কিন্তু এর আগে আরও কয়েকটি ধাপ সম্পন্ন করতে হয়। যখন প্রচুর ব্যবহারকারী একই সময়ে সাইটে আসেন তখন ওয়েবসাইট লোডিং স্পীড আরো স্লো হয়ে যায়।

ওয়ার্ডপ্রেস caching

কিন্তু cache plugin ওয়ার্ডপ্রেস সাইটকে অনেকগুলো স্টেপ এড়ানোর সুযোগ করে দেয়। যার কারণে সাইটের লোডিং স্পিড অনেক ভালো থাকে। যা আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের এসইও উন্নতিতে খুবই গুরত্বপূর্ণ।


শেষ কথা,

আমরা আশা করি যে এই আর্টিকেলটি আপনাকে SEO এর জন্য আপনার ওয়ার্ডপ্রেস সাইটকে কীভাবে অপটিমাইজ করতে হবে তা শিখতে সহায়তা করেছে।

এই ওয়ার্ডপ্রেস এসইও টিপসগুলো যথাযথভাবে প্রয়োগ করুন। ‍এক থেকে দুই মাসের মধ্যেই সার্চ ইঞ্জিনে আপনার সাইটের অবস্থান ও ট্রাফিক সংখ্যার পরিবর্তন লক্ষ্য করবেন ইনশা’আল্লাহ।


আরো পড়ুন:

  1. আই ফোন সারা পৃথিবীতে বিখ্যাত কোনো 
  2. প্রসেসর কি 
  3. বাংলাদেশে dslr ক্যামেরার দাম 
  4. সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং কি ?
  5. বিশ্বের সেরা 11টি জনপ্রিয় অনলাইন মোবাইল গেম
  6. নতুন গেমিং ল্যাপটপ 2022
  7. নতুন গেমিং পিসি 2022 |
  8. ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা দামের মধ্যে ভালো ফোন 
  9. কম্পিউটার ভাইরাস কি ? কম্পিউটারে ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় কি ?
  10. 10000-এর নীচে সেরা ফোন 


0/পোস্ট এ কমেন্ট/Comments