ফ্রিল্যান্সিং কি? কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো এবং ফ্রিল্যান্সিং থেকে কত টাকা আয় হয় ?

 


ফ্রিল্যান্সিং থেকে কত টাকা আয় হয় ? What is Freelancing ? How to learn freelancing and how much money is earned from freelancing ?


দেশের বাজারে চাকরির সুযোগ কম থাকায় আমাদের সমাজে অনেকে ফ্রিল্যান্সিং করতে চায়! এমনকি এর চাহিদাও কিন্তু কম না। কিন্তু এটা জানা থাকে না যে, ফ্রিল্যান্সিং কি? অথবা ফ্রিল্যান্সিং কেন করব ইত্যাদি।


বর্তমান সময়ে অনেকে ক্যারিয়ার কিংবা উপার্জনের ক্ষেত্র হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং কে বেচে নেয়। কিন্তু যারা নতুন তাদের মনে প্রশ্ন থাকে যে, ফ্রিল্যান্সিং কেন করব বা ফ্রিল্যান্সিং করে কতটুকু লাভবান হওয়া যায়?


তাই আজকের আর্টিকেলটি পড়লে আপনি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে একটা ব্যাসিক ধারণা পেয়ে যাবেন। এবার মূল আচোনায় যাই।


বর্তমান সময়ে বেকার বা যুবকরা ফ্রিল্যান্সিং এর দিকে বেশি আগ্রহী। অথবা বলতে পারেন বর্তমান প্রজন্মই ফ্রিল্যান্সিং এর দিকে বেশি আগ্রহী।


ফ্রিল্যান্সিং কি? 

ফ্রিল্যান্সিং মানে মূলত কোনো প্রতিষ্ঠানের অধীনে স্থায়ী না থেকে নিজের মত স্বাধীনভাবে কাজ করা। বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং শব্দটি দ্বারা কন্ট্রাক্ট-ভিত্তিক কাজকে বোঝানো হয়। ফ্রিল্যান্সিং এর ক্ষেত্রে কোনো প্রতিষ্ঠানের পরিবর্তে ব্যক্তি নিজেই তার দক্ষতা ও অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে কোনো একটি সার্ভিস প্রদান করে থাকেন।


সহজ ভাষায় বলতে গেলে, যখন কোনো ব্যক্তি নিজের দক্ষতা, শিক্ষা ও অভিজ্ঞতাকে কাজ লাগিয়ে কোনো প্রতিষ্ঠানের অধীনে না থেকেই একাধিক ক্লায়েন্ট এর কাজ করে, তখন ওই কাজকে বলা হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। আর যে ব্যাক্তি ফ্রিল্যান্স কাজ করেন, তিনিই হচ্ছেন একজন ফ্রিল্যান্সার।


কিন্তু, ফ্রিল্যান্সিং করে স্বাধীন ভাবে আয় করার জন্য, আপনার প্রথমে কিছু জরুরি কথা এর বিষয়ে জেনেনিতে হবে।


এই জরুরি বিষয় গুলি হলো –


  • ফ্রিল্যান্সিং মানে কি ?
  • ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করব ?
  • কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করবো ?
  • Freelancing করে কত টাকা আয় করা যাবে ?
  • আমি কি ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার বানাতে পারবো ?
  • যদি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাই, কোন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স করতে হবে ?
  • নতুনদের জন্য কিছু সেরা ফ্রিল্যান্সিং সাইট কোনগুলি ?

তাহলে বন্ধুরা, ওপরে আমি দেয়া বিষয় গুলির ব্যাপারে সম্পূর্ণ জেনে নেয়ার পর, freelancing এর ব্যাপারটা আপনার জন্য স্পষ্ট হয়ে দাঁড়াবে।


এবং, সবটাই জানার পর, আপনি এইটা বুঝে যাবেন যে, আসলে freelancing কি এবং এর দ্বারা অনলাইন টাকা আয় করাটা আপনার জন্য কতটা সম্ভব হতে পারে।


ফিল্যান্সিং মানে কি?

বর্তমান সময়ে কর্মজগতের সবচেয়ে ট্রেন্ডিং টপিকঃ হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। তাই ফ্রিল্যান্সিং মানে কি এ সম্পর্কে আরেকটু ধারনা দেয়ার চেষ্টা করি।

প্রথম কথা হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং কি? এই হেডলাইনে আমি খোলাখুলিভাবে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত বুঝানোর চেষ্টা করেছি।

এবার একটু সহজভাবে বলতে গেলে ফ্রিল্যান্সিং মানে কি? এর উত্তর হলো আমাদের প্রতিটা কর্মজগতে অনেকগুলো ক্যাটাগরি এবং অনেকগুলো অপশন থাকে।

সেই অপশনের মধ্যে একটা অপশন হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং। এটা কি আপনি ক্যারিয়ার বলতে পারেন। অনেকে ফ্রিল্যান্সিং করে তাদের ক্যারিয়ার গড়েছে।

আবার অনেকে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করে আবার হারিয়ে গিয়েছে। অর্থাৎ ফ্রিল্যান্সিং জগতে সফল হতে পারে নাই।

তাদের সফল না হওয়ার অনেকগুলো কারণ আছে। এর মধ্যে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ কারণ হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং কোথায় শিখবো এমন একটা প্রশ্ন থাকাতে।


ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো 2022

একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার মনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ যে প্রশ্নটি সেটি হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখব। অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং করতে চাই কিন্তু কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো সেটা না জানাতে তাদের ফ্রিল্যান্সিং করা হয় না।

আপনি যদি একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার হয়ে থাকেন কিংবা ফ্রিল্যান্সিং করবেন ভাবছেন তাহলে, আপনাকে আগে জানতে হবে কিভাবে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শিখবেন।


ফ্রিল্যান্সিং করতে কি কি লাগে?

  • আপনার একটা কম্পিউটার লাগবে?
  • ইন্টারনেট ব্যবস্থা থাকা লাগবে
  • যেকোনো কাজ জানা লাগবে (যে বিষয়ের উপর কাজ করবেন)
  • ফ্রিল্যান্সিং কাজ পাবো কোথায় ?

ফ্রিল্যান্সারদের জন্য অনেকগুলো মার্কেপ্লেস আছে, যেখানে লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার প্রতিনিয়ত কাজ করে আসছে। সেরকম কয়েকটি হলো:


ফাইবার .Com

মার্কেটপ্লেসগুলাের মধ্যে সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইট হলো ফাইবার। ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে যারা নতুন তাদের জন্য বেশ কার্যকরি।

ফাইবারে একাউন্ট খুলতে তেমন কোনো জামেলা নেই বললেই চলে। এছাড়াও এখানে $5 ডলার থেকে শুরু করে $1000 ডলার পর্যন্ত কাজ পাওয়া যায়।  


Freelancer.com

যারা প্রফেশনালি কাজ করতে চায় তাদের জন্য রয়েছে ফ্রিল্যান্সার ডট কম। ফ্রিল্যান্সারে কাজ করতে চাইলে আপনার প্রয়োজন ভালো দক্ষতা। 

যা ফ্রিল্যান্সার সাইটে কাজ পেতে খুব সহায়ক বলে আমি মনে করি। আর এই সাইটটিতেত 1800 শত এর অধিক ক্যাটাগরি রয়েছে। তাই আশা করি আপনার কাজের ক্যাটাগরিও থাকবে।


এছাড়াও আরও অনেক সাইট রয়েছে। এখানে শুধু মাত্র নতুনদের জন্য ফাইভার এবং প্রফেশনালদের জন্য ফ্রিল্যান্সার ডট কম নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে । 

এখন তো বাংলাদেশেও অনেক সাইট আছে যেমন বিডি জবস ডট কম । আর আপনি গুগলে সার্চ করলেই অনেক সাইট পেয়ে যাবেন।

এখন কথা হচ্ছে এতো opportunity আছে ফ্রিল্যান্সারদের জন্য। তাহলে আমার ফিল্যান্সিং করা কি ঠিক হবে? বা আমি ফ্রিল্যান্সিং কেনো করবো?


ফ্রিল্যান্সিং কেন করব?

আসলেই আপনি ফ্রিল্যান্সিং কেনো করবেন? আপনি চাকরি বা ব্যবসা করতে পারেন। সেখানে তো অনেক লাভ। তাই না?


আমার কাছে এই প্রশ্নটার উত্তর একটু ভিন্ন। প্রথমত চাকরির বাজারের খুব করুণ অবস্থা। এরপরে অনলাইন জগতেও অনেক ব্যবসা আছে।

বর্তমান সময়ে ভালো ভালো গ্রাজুয়েট শেষ করেও চাকরি পাচ্ছে না, এরকম ঘটনা নতুন কিছু না। আর বেকার সমস্যাও নতুন না । 

আর দ্বিতীয়ত হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং সম্পূর্ন স্বাধীন পেশা। এখানে আপনার সময় মতো অফিস করার প্রয়োজন নাই কিংবা চাকরি খোজারও দরকার নাই। 

শুধুমাত্র আপনার যোগ্যতা দেখাবেন এবং দক্ষতা অনুযায়ী কাজ করবেন। তার মানে এটা না যে, আপনি চাকরি ছেড়ে ফ্রিল্যান্সিং করবেন!

আরেকটা হচ্ছে দক্ষতা। এই দক্ষতা আমাদের অনেকের মধ্যেই থাকে। কিন্তু আমরা কাজে লাগাতে পারি না। 

কাজের মাধ্যমে যেমন দক্ষতাকে কাজে লাগাতে পারবেন তেমনি টাকা আয়ও করতো পারবেন। তােই আপনার সুপ্ত প্রতিভাকে অনলাইনের মাধ্যমে কাজে লাগান।

ধরা যাক, আপনি একজন ডিজিটাল মার্কেটার। কিন্তু আপনার তো আর জোর জবরদস্তি নাই। আপনার যখন মন চাইবে আপনি তখন কাজ করতে পারবেন।

এরকম কাজ বা ফ্রিল্যান্সিং পুরোটা স্বাধীন। তবে, নতুন অবস্থায় প্রচুর কাজ করতে হবে। এবং প্রচুর সময় দিতে হবে।


৪ টি ফ্রিল্যান্সিং সাইট ঘরে বসে কাজ করার জন্য খুবই জনপ্রিয় 

Fiverr – Fiverr অনেক পুরোনো, বিশ্বাসী এবং অনেক প্রচলিত ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইট যেখানে আপনি অনেক ধরণের কাজ করতে পারবেন। প্রত্যেকটি কাজ এখানে ৫ ডলার থেকে শুরু হয়। Graphic designing, Digital marketing, content writing, programming বা video & animation এরকম অনেক ধরণের বিষয় নিয়ে কাজ করতে পারবেন।

Upwork – upwork আজকের দিনে অনেক নাম করা একটি ফ্রিল্যান্সিং সাইট, যেখানে ১২ মিলিয়ন ফ্রিল্যান্সাররা কাজ করছে এবং টাকা আয় করছেন। প্রত্যেক বছর এখানে ৩ মিলিয়নের অধিক কাজ পোস্ট করা হয়। এখানে প্রায়, সব ধরণের কাজের জন্য লোকেরা freelancer দেড় খুজেঁন।

Freelancer – এখানে আপনারা প্রায় সব ধরণের কাজের জন্য ক্লায়েন্ট (clients) পেয়ে যাবেন। ১৩৫০ টি আলাদা আলাদা ক্যাটাগরিতে (category) এখানে লোকেরা কাজ করছেন। এবং, সেগুলির মধ্যে কিছু হলো – accounting, finance, internet marketing, SEO, PHOTOSHOP, graphic designing, web design, mobile app এবং আরো অনেক অনেক বিষয় নিয়ে এখানে কাজ পেয়ে যাবেন।

Guru – ৩০ লক্ষ লোকেরা guru ওয়েবসাইটের সাথে জড়িত এবং এখন অব্দি ১০ লক্ষ কাজ এখানে করানো হয়েছে। এখানেও আপনারা, প্রায় সব ধরণের বিষয় বা niche নিয়ে কাজ খুঁজতে পারবেন। নিজের একটি প্রোফাইল বানিয়ে, তাতে নিজের কাজের অভিজ্ঞতা, দক্ষতা এবং জ্ঞানের ব্যাপারে সবটাই দিয়ে দিন। তারপর, লোকেরা আপনার প্রোফাইল এবং কাজের ব্যাপারে দেখে তাদের প্রয়োজন হিসেবে আপনাকে কাজ দিবে।


ফ্রিল্যান্সিং করে কত টাকা আয় করা যাবে ?

ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা আয় করার কোনো সীমা নেই। হে, এটাও এক রকমের ব্যবসা (business), যেখানে আপনার কাছে যত বেশি কাজ আসবে এবং যত বেশি কাজ আপনি করে দিতে পারবেন, ততটাই বেশি আপনার ইনকাম হবে।


PayPal এর একটি survey বা report হিসেবে, ২৩ % ভারতীয় ফ্রিল্যান্সাররা ৬০ লক্ষ টাকা প্রত্যেক বছরে আয় করছে।

এবং, বাকি ২৩% রা ২.৫ লক্ষ থেকে ৫ লক্ষ টাকার ভেতরে টাকা আয় করছেন। তাছাড়া, বাকি ৫৪ % ফ্রিল্যান্সাররা ২.৫ লক্ষ থেকেও কম টাকা বছরে আয় করছেন।


তাই, সোজা ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্সিং এ ক্যারিয়ার বানালে লাভ আছে এবং এর থেকে আপনি লক্ষ লক্ষ টাকা ঘরে বসেই আয় করতে পারবেন। কিন্তু, আপনাকে ভরসা করে কতজন কাজ দিচ্ছে এবং কতটা কাজ আপনি সম্পূর্ণ করতে পারছেন, সেটার ওপরে আপনার আয় নির্ভর করবে।


আজ, অনলাইন এবং ইন্টারনেটের দুনিয়াতে সুযোগ অনেক রয়েছে। লক্ষ লক্ষ লোকেরা, বিভিন্ন ছোট ছোট কাজের জন্য, একজন কর্মচারী (employee) রেখে তাকে মাসে মাসে টাকা দেয়ার থেকে, একজন freelancer কে দিয়ে সেই কাজ অনেক কম টাকায় সহজে করিয়ে নিচ্ছেন।


কোনো বিশেষ কাজে, আপনার যত বেশি অভিজ্ঞতা (experience) থাকবে, ততটাই বেশি টাকা আপনি প্রত্যেক কাজের জন্য চার্জ (charge) করতে পারবেন।


কোন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স শিখতে হবে ?

সোজা ভাবে বললে, ফ্রিল্যান্স করার জন্য বা শেখার জন্য কোনো কোর্স (course) করার প্রয়োজন আমাদের হয়না।

হে, কিছু সাধারণ জ্ঞান যেমন, কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো, কোন ওয়েবসাইটের মাধ্যমে কাজ খুঁজবো এবং প্রথমেই আমাদের কি কি করতে হবে, এগুলির ব্যাপারে জেনে নিতে হবে। এবং, এগুলির ব্যাপারে সবটাই আমি ওপরে বলেছি।


এখন, ফ্রিল্যান্সিং কোর্স বলেতো বিশেষ কিছুনা নেই, যদিও আপনি freelancing এর কাজ করার জন্য, কিছু বিশেষ কোর্স করতে পারেন, এবং যেগুলি শেখার পর আপনারা ফ্রিল্যান্সিং এর কাজ শুরু করতে পারবেন। যেমন –


 Translating course : আজকাল বিভিন্ন ভাষা জানলে আপনারা translator এর কাজ করতে পারবেন। এক্ষেত্রে, ভাষা ট্রান্সলেট করার দক্ষতা থাকাটা আপনার জন্য অনেক কাজ এনেদিতে পারে।

Graphic design : আজকাল, মার্কেটিং, লোগো বানানো এবং প্রায় অনেক কাজেই গ্রাফিক ডিসাইনার দেড় প্রয়োজন হয়। তাই, এই কোর্স আপনার জন্য লাভজনক হতে পারে।

Website বানানো : এই ব্যাপারে আমি আপনাদের না বললেও চলবে। কারণ, আজকাল ওয়েবসাইট বানানোর কাজ জানাটা কতটা লাভজনক সেটা আমরা সবাই জানি।

Article writing : আপনার যদি লেখার অভিজ্ঞতা বা দক্ষতা রয়েছে বা আপনি আর্টিকেল লেখার একটি কোর্স করে, ভালো ভাবে এই শিল্প (art) শিখতে পারেন, তাহলে বিভিন্ন ব্লগ (blog) বা কোম্পানির ওয়েবসাইটের জন্য লিখতে পারবেন।

Video editing : বিভিন্ন কোম্পানি বা অনলাইন marketer রা নিজের ব্র্যান্ড এর জন্য ভিডিও এডিটিং কোরান। তাই, এই ব্যাপারে কোর্স করলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে অনেক কাজ পেতে পারবেন।

 Coding (PHP/Java/Css) : আজকাল, web development বা application building এর কাজে বিভিন্ন coding language এর প্রয়োজন হয়। এক্ষেত্রে, আপনার যদি কোনো বিশেষ coding language এর জ্ঞান বা দক্ষতা থাকে, তাহলে এর সাথে জড়িত অনেক কাজ পেয়ে যাবেন।

এগুলি ছাড়াও, অনেক আরো কোর্স রয়েছে, যেগুলি করে নিজেকে একজন এক্সপার্ট বানিয়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিং এর দুনিয়াতে আসতে পারবেন।


 শেষ কথা,

তাহলে বন্ধুরা, ফ্রিল্যান্সিং মানে কি এবং কিভাবে শুরু করবো, এই ব্যাপারে হয়তো আপনারা পুরোটাই ভালো করে বুঝে গেছেন। এই, মাধ্যমে ঘরে বসে অনলাইন কাজ করাটা অনেক লাভজনক।


কিন্তু, সবচে আগেই, আপনাকে নিজের এমন এক দক্ষতা বা কাজের অভিজ্ঞতার বিষয়ে ভাবতে হবে, যেটাতে আপনি এক্সপার্ট এবং যেই কাজ আপনি সহজে করে দিতে পারবেন। বাকি, সঠিক ভাবে এগিয়ে গেলে, এখানে আপনিও সফল হয়ে দাঁড়াবেন।


আরো পড়ুন:

  1. আই ফোন সারা পৃথিবীতে বিখ্যাত কোনো 
  2. প্রসেসর কি 
  3. বাংলাদেশে dslr ক্যামেরার দাম 
  4. সফ্টওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং কি ?
  5. বিশ্বের সেরা 11টি জনপ্রিয় অনলাইন মোবাইল গেম
  6. নতুন গেমিং ল্যাপটপ 2022
  7. নতুন গেমিং পিসি 2022 |
  8. ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা দামের মধ্যে ভালো ফোন 
  9. কম্পিউটার ভাইরাস কি ? কম্পিউটারে ভাইরাস থেকে রক্ষা পাওয়ার উপায় কি ?
  10. 10000-এর নীচে সেরা ফোন 


0/পোস্ট এ কমেন্ট/Comments