ফ্রিল্যান্সিং-কি?-কিভাবে-শুরু-করবেন-ফ্রিল্যান্সিং-ক্যারিয়ার | Freelancing - What? - How - To Start - Freelancing - Career

 Freelancing - What? - How - To Start - Freelancing - Career





ফ্রিল্যান্সিং কি?

এই বিষয়ে কাজ করার আগে আপনাকে অবশ্যই জানতে হবে। ফ্রিল্যান্সিং কি? বা ফ্রিল্যান্সিং সেক্টরটা আসলে কি? ফ্রীলান্সিং হচ্ছে, এমন একটি সেক্টর। যেখানে আপনি ঘরে বসে অথবা বিশ্বের যেকোন প্রান্তে বসেই বিভিন্ন কার্যক্রম পরিচালনা ও সার্ভিস বিক্রি করার মাধ্যমে অনলাইন থেকে অর্থ উপার্জন করার একটি যুগোপযোগী সিস্টেম। এই পদ্ধতি ব্যবহার করে আপনি ঘরে বসেই একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।


কি কি কাজগুলো ফ্রিল্যান্সারদের শিখতে হয়?

আমরা একটু আগে আলোচনা করেছি। মূলত আপনি কি কি কাজ গুলো শিখবেন? সেটা নির্ভর করে আপনি কোন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিংকরবেন? সেটার উপরে Based করে। যদি আপনি কোন বিষয়ে ফ্রিল্যান্সিংকরবেন? সেটা নির্বাচন করতে পারেন, তাহলে আপনি সঠিক উত্তর পাবেন। তখন কি কি বিষয়ে আপনাকে দক্ষতা অর্জন করতে হবে? সে সম্পর্কে সহজে বুঝতে পারবেন।

সুতরাং আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে নির্বাচন করতে হবে। কি বিষয়ে আপনি কাজ করবেন? এর পরে আপনি জানতে পারবেন, আপনাকে কি কি বিষয়ে কাজ শিখতে হবে? মূলত যারা ফ্রিল্যান্সিং কাজে আগ্রহী এবং ফ্রিল্যান্সার হতে চান, তাদের জন্য আমরা নিচে কিছু বিষয় আলোচনা করব। যে বিষয়গুলো আপনাকে অবশ্যই একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে জানতে হবে।

যিনি ফ্রিল্যান্সিং কাজ করবেন, তাকে কিন্তু বিভিন্ন সেক্টরের কাজ সম্পর্কে জ্ঞান অর্জন করতে হবে। আপনি যদি ডিজিটাল মার্কেটার হিসেবে কাজ করেন। এক্ষেত্রে আপনাকে ৩৬০ ডিগ্রি জ্ঞান অর্জন করতে হবে। আপনি ৩৬০ ডিগ্রি জ্ঞান অর্জন করতে পারেন, তাহলে আমি মনে করবো আপনি ভালো একজন ফ্রীল্যান্সার হতে পারবেন


যে কাজগুলো আপনাকে শিখতে হবে

  • টাইপিং গতি অনেক বেশি ভালো হতে হবে
  • বেসিক কম্পিউটার পরিচালনা জানতে হবে
  • ফ্রিল্যান্সিং কি সেটা সহজে বুঝতে হবে
  • এই সেক্টরে কি কি কাজের ক্যাটাগরি রয়েছে, তা জানতে হবে
  • বেসিক কোডিং জানতে হবে
  • যে বিষয়ে কাজ করবেন, তাতে পরিপূর্ণ দক্ষতা অর্জন করতে হবে
  • গ্রাফিক ডিজাইন সম্পর্কে সাধারণ অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।


ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং কেমন হবে?

ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রীলান্সিং অসাধারণ একটি সেক্টর। এই সেক্টর এর মধ্যে আপনি যেকোন বিষয়ে সার্ভিস প্রদান করার মাধ্যমে কাজ করতে পারবেন। ইতিমধ্যে আপনারা আমাদের আলোচনার মধ্য থেকে জানতে পেরেছেন। একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনার কি কি দক্ষতা থাকা প্রয়োজন? যদি আপনি এই বিষয়গুলোকে ভালোভাবে উপলব্ধি করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে আপনাদের অবশ্যই সামান্য কিছু ধারনা হলেও অর্জন হয়েছে।

ফ্রিল্যান্সিংকে যারা ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রহণ করতে চান, তাদের জন্য এটি খুবই উপযুক্ত একটি অপরচুনিটি। যদি আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে চান। আপনাকে নিজের জন্য একটি সেরা ক্যাটাগরি নির্বাচন করতে হবে। কারণ, ফ্রিল্যান্সিং কাজের মধ্যে বিভিন্ন রকমের ক্যাটাগরি রয়েছে। এখান থেকে আপনার জন্য কোন ক্যাটাগরিটি উপযুক্ত সেটি আপনাকে প্রথমে নির্বাচন করতে হবে।

এরপর আপনার ক্যারিয়ারের জন্য আপনাকে একটি গোল তৈরি করতে হবে। কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন? সে বিষয়ে আমরা একটু পরে আলোচনা করব। তবে এটাই আপনাকে বলতে চাই, যদি আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে এই প্রফেশনে ক্যারিয়ার গড়তে চান। কোন চিন্তা ছাড়াই আপনি এই সেক্টরে নিজের ক্যারিয়ার নির্বাচন করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাকে অবশ্যই একজন দক্ষ ফ্রিল্যান্সার হতে হবে। যদি আপনি ক্রিয়েটিভ হতে না পারেন, তাহলে ফ্রিল্যান্সিং কাজ আপনার জন্য কঠিন হবে।

পাশাপাশি আপনার দীর্ঘ সময় ব্যয় করে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে। যদি আপনি দিনরাত পরিশ্রম করতে না পারেন, তাহলে কিন্তু ফ্রিল্যান্সিং আপনার জন্য নয়। তবে এমন না যে, আপনাকে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টাই খাটতে হবে। হতে পারে কিছু কিছু সময় আপনাকে দিনে এবং রাতে কাজ করতে হতে হবে।

অনেক সময় দেখা যায় যে ফ্রিল্যান্সিং কাজের চাপ বেশী হলে আপনাকে বেশি সময় ধরে কাজ করতে হবে। এজন্য আপনাকে যেদিন কাজের পরিমাণ বেশি থাকবে। সেদিন বেশি কাজ করার দক্ষতা আপনার মধ্যে তৈরি করতে হবে।

যদি আপনি ভালো দক্ষতা অর্জন করতে পারেন এবং কাজের মধ্যে নিজেকে জড়িয়ে রাখতে পারেন। তাহলেই ফ্রীলান্সিং আপনার জন্য খুব ভালো একটি উপযুক্ত সেক্টর হবে।

এই সেক্টর থেকে মাসে কত টাকা আয় করা যায়

ফ্রিল্যান্সিং করে আপনি মাসে কত টাকা ইনকাম করতে পারবেন? সে বিষয়টি নির্ভর করে আপনার কাজের উপরে। আপনি কোন ক্যাটাগরিতে কাজ করতে যাচ্ছেন? সে ক্যাটাগরির মান কেমন? এবং কত সময় ধরে আপনি কাজ করে যাচ্ছেন? কতগুলো বায়ারের কাছে আপনি সম্পন্ন করতে সক্ষম হয়েছেন? সে বিষয়ের উপরে নির্ভর করে।

ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম
ফ্রিল্যান্সিং করে টাকা ইনকাম

ফ্রীল্যান্স মার্কেটপ্লেস থেকে কত অর্থ উপার্জন করতে পারবেন? আমি যদি আপনাদেরকে একটি ধারণা দিয়ে দিই, তাহলে ভালো হবে। আপনি যদি প্রতিদিন তিন থেকে চার ঘণ্টা মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনি প্রতি মাসেই একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে বাংলাদেশি টাকায় আপনি ৪০ থেকে ১ লাখ টাকারও বেশি অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। তবে এক্ষেত্রে আপনার যথেষ্ট ভালো দক্ষতা থাকতে হবে।

যদি আপনি ক্লায়েন্টদের সার্ভিস বিক্রি করতে না পারেন, তাহলে কিন্তু ফ্রীলান্সিং থেকে অর্থ উপার্জন করা সম্ভব নয়। অনেকেই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করেন কোনো দক্ষতা ছাড়া। ভালো দক্ষতা না থাকায় এই ফ্রিল্যান্সারদেরকে হতাশ হতে হয়। যদি আপনি সঠিক একটি বিষয় নির্বাচন করেন। সেই বিষয়ে ভালো পড়াশোনা করার পর নিজের মধ্যে দক্ষতা তৈরি করে ফেলেন।

জ্ঞান অর্জনের পরে যদি কাজ করেন, তাহলেই আপনি ভালো অর্থ উপার্জন করতে পারবেন। সুতরাং যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং থেকে ভালো অর্থ উপার্জন করতে চান এবং হতাশ হতে না চান। আপনাকে ভালো দক্ষতা অর্জন করতে হবে এবং আপনাকে ভালো একটি স্বপ্ন দেখতে হবে। নিজের জন্য ভালো একটি গোল তৈরি করতে হবে। যেন আপনি সঠিকভাবে কাজ করতে সক্ষম হন।

আমি কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করব?

আপনি কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন? এই বিষয়ে কিন্তু আলোচনার মধ্যেই দিয়ে ইতিমধ্যে অনেকটা ধারণা প্রদান করেছি। যদি আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চান, তাহলে প্রথমে আপনাকে স্বপ্ন দেখতে হবে, আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হবেন। এর পরে আপনাকে একটি বিষয় নির্বাচন করতে হবে। যেমন গ্রাফিক ডিজাইন, ওয়েব ডিজাইন, এবং ডিজিটাল মার্কেটিং, ইত্যাদি।

এই ধরনের সাবজেক্ট গুলো থেকে যে কোন একটি বিষয়ে আপনাকে নির্বাচন করতে হবে। যে বিষয়টি নিয়ে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাচ্ছেন। এরপরে আপনাকে উক্ত বিষয়ের উপরে স্টাডি করতে হবে। স্টাডি করার জন্য আপনি চাইলে কোন একটা আইটি ইন্সটিটিউট থেকে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করতে পারেন। অথবা আপনি চাইলে ইউটিউব এবং গুগল এর মাধ্যমে জ্ঞান অর্জন করতে পারেন। আপনারা যদি আমাদের ওয়েবসাইটের ফ্রিল্যান্সিং ও ডিজিটাল মার্কেটিং গাইডলাইন গুলো অনুসরণ করতে পারেন।

এখান থেকে ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে ভালো জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন।

তবে লেখাগুলো পড়ে আপনি একজন প্রফেশনাল ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারবেন না। এখানে শুধুমাত্র আমরা টিপস ও কৌশল শেয়ার করেছি। কিভাবে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করতে হয়? সে বিষয়ে কিন্তু এখানে কাজ শেখানো হয়নি। সুতরাং আপনাকে আমরা সঠিক তথ্য গুলো দিতে পারবো।

এই বিষয়ে যদি আপনারা একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ শুরু করতে চান। আপনাকে আপনার নির্ধারিত বিষয়ে ভালো দক্ষতা অর্জন করার পর। বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে প্রোফাইল তৈরি করতে হবে। মার্কেটপ্লেসের প্রোফাইল তৈরি করে সেখানে নিজের সম্পর্কে তথ্য বহুল আলোচনা শেয়ার করতে হবে। আপনার এবং আপনার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে ক্লায়েন্টদেরকে সহজে বোঝাতে হবে।

এরপরে আপনি বসে থাকলে হবে না। আপনি আপনার প্রোফাইলটা কে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে এবং বিভিন্ন ওয়েবসাইটের মধ্যে প্রমোশন করতে পারেন। প্রমোট করলে আপনি খুব দ্রুত কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকবে। এক্ষেত্রে ফেসবুক এবং টুইটার ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়া এগুলোতে আপনার মার্কেটপ্লেস প্রোফাইল গুলোকে শেয়ার করতে পারেন। নিয়মিত এই কাজটি আপনাকে করতে হবে।

যেন আপনার প্রোফাইলে ইম্প্রেশন এবং ক্লিক যুক্ত হয়। যখন ইম্প্রেশন এবং ক্লিক ভাল হবে, তখন মার্কেটপ্লেসগুলোতে আপনার প্রোফাইলটা সবার উপরে চলে আসবে। এবং এখান থেকে আপনি কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি বৃদ্ধি পাবে। এভাবে করে যদি আপনি কাজ করতে পারেন, তাহলে সহজেই আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবেন।

আশা করছি, এই লেখার মাধ্যমে আপনি ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো তা জানতে পেরেছেন? এখানে ভালো অভিজ্ঞতা পেয়েছেন। যদি আপনি আরও বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করতে চান, তাহলে আমাদেরকে নিচের কমেন্ট বক্সে গিয়ে প্রশ্ন করতে পারেন। আমরা আপনাদের প্রশ্নগুলোকে সবসময় মূল্যায়ন করি। এবং খুব সুন্দর ভাবে প্রশ্ন গুলোর আনসার দেওয়ার চেষ্টা করি।

ফ্রিল্যান্সিং কি নতুনদের জন্য ভালো?

আমাদের আলোচনার মধ্যে আমরা দক্ষতা শব্দটাকে একাধিকবার ব্যবহার করেছি। এজন্য আপনারা মনে করবেন না যে, আপনি যদি দক্ষ হতে না পারেন। তাহলে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবেন না। ফ্রিল্যান্সিং এর মধ্যে আমরা একটি বিষয় বারবার বলেছি। প্রথমে আপনাকে একটি নির্দিষ্ট বিষয় নির্বাচন করতে হবে। যে বিষয়ে আপনি তাদেরকে সার্ভিস প্রদান করবেন।

ফ্রিল্যান্সিং কি নতুনদের জন্য ভালো?

যদি সে বিষয়টা আপনার জন্য খুবই সহজ হয়। আপনি একজন নতুন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে মার্কেটপ্লেসে কাজ করতে পারবেন। যদি আপনি এক থেকে তিন মাস ইউটিউব এবং গুগলের মাধ্যমে বিভিন্ন বিষয়ে প্র্যাকটিস করেন। তাহলে আপনি ভাল সার্ভিস প্রদান করার জন্য প্রস্তুতি গ্রহণ করতে পারবেন। ফ্রিল্যান্সিং কাজ অনেক জটিল কোনো কাজ নয়। এটি খুব সহজ একটি কাজ।

যদি আপনি নিজেকে স্মার্ট হিসেবে উপস্থাপন করতে পারেন। এবং কাজে আপনাকে নিয়োজিত করতে পারেন। তাহলে অবশ্যই ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবেন। যদি একজন নতুন হিসেবে আপনাকে শুরু করতে চান, তাহলে আপনার ভয় পাওয়ার কোন কারণ নেই। ভয় না পেয়ে শুরু করুন। এখান থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারবেন।

যারা ফ্রিল্যান্সিং কাজকে ভয় পেয়ে থাকে, তারা মূলত অনেক বড় একটি সুযোগ হারিয়ে ফেলেছে। এজন্য আপনি যেন আপনার অর্থ উপার্জনের এই সুযোগটি হারিয়ে না ফেলেন। তার জন্য আপনাকে ভয় দূর করে কাজ শুরু করতে হবে।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো?

সম্মানিত পাঠক আশা করছি, আমাদের সম্পূর্ণ আলোচনার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো? সেই প্রশ্নের উত্তরটি আপনারা পেয়েছেন। আপনারা যদি এই প্রশ্নটির উত্তর সঠিকভাবে না পেয়ে থাকেন, তাহলে আমাদেরকে আপনাদের ব্যক্তিগত প্রশ্ন গুলো কমেন্ট এর মাধ্যমে করতে পারেন। আমরা সব সময় আপনাদের কে সঠিক তথ্য এবং জ্ঞান শেয়ার করার জন্য প্রস্তুত।

যেহেতু অনেকে আমাদের কে প্রশ্ন করে থাকেন। ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো? সেজন্য আমরা এই বিষয়ে আজকে একটি পরিপূর্ণ গাইডলাইন আপনাদের সাথে শেয়ার করলাম। এখানে হয়তো অনেক কিছুই না থাকতে পারে। পরবর্তীতে আমরা এই লেখাটিকে আরও আপডেট করব। এবং এই লেখার মধ্যে আরও তথ্য বহুল কিছু বিষয় আপনাদের জন্য যুক্ত করে দিব।

যদি আপনারা এই বিষয়টাকে পছন্দ করে থাকেন, তাহলে আপনারা নিজেদের প্রশ্নগুলো আমাদেরকে করতে পারেন। যে প্রশ্নগুলো আমরা আমাদের এই লেখার মধ্যে আপডেট করে দিব। যখন বিভিন্ন বিষয়ে প্রশ্ন করবেন, সে প্রশ্নগুলো থেকে অন্যান্য পাঠকরাও জ্ঞান অর্জন করতে পারবে। যখন আমরা আপনাদের প্রশ্নগুলোর উত্তর দিব। সে প্রশ্নের উত্তর অন্যান্য পাঠাকরাও দেখবে।

যার মাধ্যমে তারা আপনাদের মত অজানা প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যাবে। আশা করছি, এটি আপনাদের জন্য খুবই ভাল একটি আর্টিকেল লেখা হয়েছে। যদি এই আর্টিকেলটি পছন্দ করে থাকেন, তাহলে বন্ধুদের সাথে এই লেখাটির লিংক কপি করে ফেসবুক, টুইটার এবং হোয়াটসঅ্যাপের মধ্যে শেয়ার করতে পারেন। সবার জন্য শুভকামনা রইল! ফিনান্সিং করার জন্য সবাই এগিয়ে যান। এই কামনায় আজকের লেখাটা শেষ করতে যাচ্ছি। আল্লাহ হাফেজ।























0/পোস্ট এ কমেন্ট/Comments